ফরিদপুরের রাজনীতিতে এগিয়ে আসতে হবে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তিকে- সাংবাদিক প্রবীর শিকদার - SHOMOYSANGBAD.COM

শিরোনাম

Monday, June 07, 2021

ফরিদপুরের রাজনীতিতে এগিয়ে আসতে হবে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তিকে- সাংবাদিক প্রবীর শিকদার



ফরিদপুর প্রতিনিধি :
ফরিদপুরে দুর্নীতি দুঃশাসন অবসানের এক বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান, বিশিষ্ট সাংবাদিক প্রবীর সিকদার বলেন, স্বাধীনতা বিরোধী একটি গোষ্ঠি এই ফরিদপুরকে তাদের তাবেদারি রাষ্ট্র বানিয়ে শোষন করেছিলো। তা থেকে গত এক বছর যাবত ফরিদপুরের মানুষ মুক্ত। বিগত দিনে ফরিদপুরে কোন স্বাধীনতা ছিলো না। যা ১৯৭১ সালের থেকে ভয়ানক ছিলো এমপি মোশারফের সেই আমল। তিনি বলেন, এখন সময় ফরিদপুরের রাজনীতিতে এগিয়ে আসতে হবে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তিকে। ফরিদপুরে দুর্নীতি দুঃশাসন অবসানের এক বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এইসব কথা বলেন। 

 
তিনি তার বক্তব্য বলেন, এই সব অপকর্মের মূল হোতা এপিএস ফোয়াদ, বাবর, দোলন সহ আরো যারা পলাতক রয়েছে প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করবো তাদেরকে আটক করুন। তারা দেশ ও জাতির শত্রু। তিনি অরো বলেন, এখন অনেকে বিভিন্ন সাহেবদের দলে ভির করছেন বাচঁতে সেটা করে কোন লাভ হবে না। কারন কে কেমন তা বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর কাছে তাদের সেই আমলনামা রয়েছে। 

     
সোমবার(৭ জুন) সকাল ১১ টায় ফরিদপুর প্রেসক্লাব চত্তরে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের ফরিদপুর জেলার সভাপতি এ্যাড. সত্যজিৎ মুখার্জির সভাপতিত্বে এতে বক্তব্য রাখেন, ড, এম,এ ওয়াজেদ মিয়া মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন।

ফরিদপুর জেলার সভাপতি, জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক ত্রাণ ও সমাজ কল্যান সম্পাদক মোকারম মিয়া বাবু, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান, শেখ রাসেল পরিষদের শরিফুল ইসলাম বাবু, খন্দকার হাসানুজ্জামান সোহেল, গোলাম রাব্বানী প্রমূখ। 


উল্লেখ্য ২০২০ সালের ১৬ মে রাতে শহরের গোয়ালচামট এলাকার মোল্লাবাড়ি এলাকায় অবস্থিত জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি সুবল সাহার বাড়িতে দুই দফা হামলার ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে সুবল চন্দ্র সাহা নিজে বাদী হয়ে ঘটনার ৪৮ ঘণ্টা পর ১৮ জুন রাতে ফরিদপুর কোতোয়ালি থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে একটি মামলা করেন।


ওই মামলার সূত্রধরে গত বছর ৭ জুন রাতে বিশেষ অভিযানে শহরের বদরপুর এলাকায় অবস্থিত ফরিদপুর-৩ আসনের সাংসদ ও সাবেক মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেনের বাড়ি আফসানা মঞ্জিল এবং তার আশেপাশের এলাকাসহ শহরের বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে নয়জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।


৪৯ জন আসামির মধ্যে বরকত ও রুবেলসহ ২৫ জন গ্রেফতার আছেন। এপিএস এ এইচ এম ফোয়াদ সহ ২৪ জন পলাতক রয়েছেন। গ্রেফতার হওয়া বরকত ও রুবেলসহ ২১জন আসামি আদালতে দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন এরই মধ্যে।

No comments:

Post a Comment