চরভদ্রাসনে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার II সময় সংবাদ - SHOMOYSANGBAD.COM

শিরোনাম

Friday, June 07, 2019

চরভদ্রাসনে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার II সময় সংবাদ

নাজমুল হাসান নিরব,ফরিদপুর থেকে-
ফরিদপুরের চরভদ্রাসনে হাজেরা বেগম (২১) এক গৃহবধুর  ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে থানা পলিশ।  ঘটনাটি ঘটেছে ৭জুন শুক্রবার সকাল আনুমানিক সারে এগারোটার দিকে। উপজেলার চরহরিরামপুর ইউনিয়নের ছমির বেপারির ডাঙ্গী গ্রামে গৃহবধুর স্বামীর বাড়ীতে। ঘটনার পর হাজেরার স্বামী শেখ আমজাদ ও দেবর খোকন পালিয়েছে।

শুক্রবার বিকালে চরভদ্রাসন থানা পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।নিহত গৃহবধূ একই গ্রামের কৃষক ছুরমান খার মেয়ে।

 নিহত গৃহবধুর বড় ভাই বাদশা খাঁ জানান, একই গ্রামের ছোহরাব শেখের ছেলে শেখ আমজাদের সাথে চার বছর আগে বিয়ে হয় হাজেরার । বিয়ের সময় ৫০ হাজার টাকা নগদ যৌতুকও দেওয়া হয়। বিয়ের বেশ কিছুদিন পর হাজেরা তার মাকে জানায় আমার মনে হয় এখানে সুখ হবেনা। এরপরে তাদের ঘরে একটি পুত্র সন্তানের জন্ম হয়।সন্তানের বয়স এখন তিন।একই গ্রামে বাড়ি হওয়ায় ঘটনার ২০ মিনিট পুর্বে আমি ছোট বোনের সাথে দেখা করে মাঠে কাজ করতে যাই। সে সময় বোন জামাই ঘরেই ছিল। মাঠ থেকে চিল্লা চিল্লির আওয়াজ শুনে আমি যেয়ে দেখি আমার বোনের লাশ ঝুলছে। গায়ে ধুলো জরানো। ঘরের দরজাও খোলা ছিল।তিনি আরো দাবী করেন, পারিবারিক কলহের জের ধরে শিখাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে।পরে দড়ি দিয়ে তাকে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। ছোট্ট তিন বছরের পুত্রও বলেছে আমার মাকে আমার বাবা মেরে ফেলেছে।তবে কি নিয়ে তাদের মধ্যে কলহের সৃষ্টি হয় তা আমাদের জানা নেই।

মৃতদেহ ফেলে রেখে হাজেরার স্বামী আমজাদ, ও দেবর খোকন পালিয়ে যাওয়ার কারনে হাজেরা কে হত্যা করা  হয়েছে বলে এলাকাবাসীও ধারনা করছে।

চরভদ্রাসন থানার উপ-পরিদর্শক শরীফ আব্দুল বাকীর এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘হাজেরা বেগমের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য আগামীকাল সকাল ৮টায় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে।ময়না তদন্তের পরই বোঝা যাবে এটা হত্যা না মৃত্যু। একটি অপমৃত্যু মামলা করা হবে।ময়না তদন্তের পরই আইনানুগত ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

চরহরিরামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমির খাঁন জানান ,ঘটনার সময় আমি এলাকায় ছিলাম না। ঘটনাটির কথা আমাকে স্থানীয়রা জানিয়েছে।ময়না তদন্তোর পরই মৃত্যুর আসল ঘটনা জানা যাবে।

No comments:

Post a Comment