শ্রেণিকক্ষে অনুমতি না পেয়ে এবার সিঁড়িতেই ক্লাস নিলেন সেই ঢাবি শিক্ষক - SHOMOYSANGBAD.COM

শিরোনাম

Sunday, December 01, 2019

শ্রেণিকক্ষে অনুমতি না পেয়ে এবার সিঁড়িতেই ক্লাস নিলেন সেই ঢাবি শিক্ষক

  
সময় সংবাদ ডেস্ক//
আদালত বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণার পরও শ্রেণিকক্ষে ক্লাস নেওয়ার অনুমিত না দেওয়ায় শিক্ষার্থীদের প্রস্তাবে সিঁড়িতেই ক্লাস নিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. রুশাদ ফরিদী। রবিবার সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের সিঁড়িতে তার নেওয়া পরিসংখ্যানের ক্লাসে শতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

ঢাবি শিক্ষক রুশাদ ফরিদী এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে তিনি বলেন, ক্লাস নেওয়ার প্রস্তাব এসেছে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে। আমাকে একটা ক্লাসও নিতে দেওয়া হচ্ছে না। এ কারণে সিঁড়িতেই ক্লাস নিতে হলো। শিক্ষার্থীরা যদি চায়, তাহলে এ ধারা অব্যাহত থাকবে।

জানা যায়, ২০১৭ সালে অর্থনীতি বিভাগের কয়েকজন শিক্ষকের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন সিন্ডিকেট ড. রুশাদ ফরিদীকে বাধ্যতামূলক ছুটিতে পাঠায়। ওই বছরের ১২ জুলাই তাকে অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য ছুটিতে পাঠানোর চিঠি দেয় সিন্ডিকেট। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, বিভাগের অন্য শিক্ষকদের নিয়ে বাজে মন্তব্য করা, শিক্ষকসুলভ আচরণ না করা প্রভৃতি। 

এদিকে সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কর্মকর্তাদের উকিল নোটিস পাঠান ড. ফরিদী। নোটিসের জবার না পেয়ে ওই বছরের ১৯ জুলাই উচ্চ আদালতে রিট করেন তিনি। পরে ২৪ জুলাই উচ্চ আদালত থেকে রুল জারির পর এ বছরের ২৫ আগস্ট উচ্চ আদালতে একটি বেঞ্চ ড. রুশাদ ফরিদীর বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের দেওয়া আদেশ অবৈধ ঘোষণা করে। একই সঙ্গে তাকে কাজে যোগদান করারও নির্দেশ দেওয়া হয়। 

তবে আদালতের রায়ের পূর্ণাঙ্গ কপি হাতে না পাওয়ায় পরিবর্তে সোমবার তিনি আইনজীবীর প্রত্যয়নপত্র (ল-ইয়ার্স সার্টিফিকেট) ও যোগদানের কাগজপত্র বিভাগের অফিসে জমা দিতে গেলে চেয়ারম্যানের অনুমতি ছাড়া কোনো চিঠি গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানান অফিসের কর্মকর্তারা। এরপর বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. শফিক-উজ জামানও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া কোনো কিছু করতে পারবেন না বলে তাকে জানিয়ে দেন। এ অবস্থায় মঙ্গলবার ক্লাসে ফেরার দাবিতে চেয়ারম্যানের কার্যালয়ের সামনে প্লাকার্ড হাতে অবস্থান নেন রুশাদ ফরিদী। প্লাকার্ডে লেখা ‘আমি শিক্ষক, আমাকে ক্লাসে ফিরতে দিন’। গতকালও কর্মসূচি পালন করেন তিনি। তার এই প্ল্যাকার্ড হাতে দাঁড়িয়ে থাকার ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়।

এ বিষয়ে ড. রুশাদ ফরিদী গণমাধ্যমকে বলেন, আমার সঙ্গে অন্যায় করা হয়েছে। রায়ের কপি জমা দিতে না পারায় যোগদান করতে দিচ্ছে না। কিন্তু আইনি জটিলতার কারণে আদালতের রায়ের কপি পাওয়া সময়সাপেক্ষ। আমি তাদের এ ব্যাপারে চিঠি দিয়েছি। কিন্তু কোনো উত্তর পাইনি।


No comments:

Post a Comment