ফরিদপুরে ৪২ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে, বিদেশ ফেরত চার হাজার জনকে খুঁজছে স্বাস্থ্য বিভাগ - SHOMOYSANGBAD.COM

শিরোনাম

Thursday, March 19, 2020

ফরিদপুরে ৪২ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে, বিদেশ ফেরত চার হাজার জনকে খুঁজছে স্বাস্থ্য বিভাগ


সঞ্জিব দাস, ফরিদপুর থেকে :

ফরিদপুরে বর্তমানে হোম কোয়ারেন্টাইনে ৪২ জনকে রাখা হয়েছে। এর মধ্যে গত ২৪ ঘন্টায় হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে ২৩জনকে। এদিকে ফরিদপুর স্বাস্থ্য বিভাগ চার হাজার ০৩ জন বিদেশ ফেরতকে খুঁজতে শুরু করেছে। তাদের সকলের খোঁজ খবর এখনো স্বাস্থ্য বিভাগ জানে না। তবে তারা দিনরাত প্রশাসনকে সাথে নিয়ে কাজ করে চলছেন তাদের সন্ধানের ব্যাপারে।

এরই মধ্যে ফরিদপুরে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে চার হাজার ০৩ জন বিদেশ ফেরত ব্যক্তির তালিকা নিয়ে মাঠে নেমেছে জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগ। তাদের নিজ উদ্যোগে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার কথা থাকলেও তারা সেই নির্দেশনা মানছেন না। করোনাভাইরাস ছড়ানোর আশঙ্কা নিয়েও তারা বাহিরে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। গত ১ মার্চ হতে ১৮ মার্চ পর্যন্ত এরা বিদেশ থেকে দেশে এসেছেন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘন্টায় বিদেশে থেকে ১২৮ জন ফরিদপুরে এসেছে। হোম কোয়ারেন্টাইনে ৪২ জনের মধ্যে ৩০ জন ফরিদপুর সদরের, ০১জন আলফাডাঙ্গার এবং ১১ জন চরভদ্রাসনে তাদের বাড়ি।    

যাদের বেশিরভাগই ভারত থেকে দেশে এসেছেন। ইমিগ্রেশনের চোখ ফাঁকি দিয়ে তারা চলে গেছেন নিজ নিজ গন্তব্যে। এসব বিদেশ ফেরত লোকদের খুঁজে খুঁজে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার কথা বলছে জেলা প্রশাসন। জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসনের সকল কর্মকর্তাকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে এরই মধ্যে।

ফরিদপুরে কানাডা ফেরত আমিনুল আসলাম নামে একজন বলেন তিনি বুধবার কানাডা থেকে দেশে ফিরে বাড়ি না ফিরে নিজ থেকে হোম কোয়ারেন্টাইনে তার নিজ হোটেলে রয়েছেন। তবে তিনি নিজেকে সুস্থ বলে দাবি করেন।   

তার হোটেলের ম্যানেজার মোঃ সোহান বলেন, আমাদের হোটেলের মালিক আমিনুল ভাই সুস্থ ও ভালো আছেন। আমরা সকলে এ ব্যাপারে সজাগ রয়েছি।

সিংগাপুর প্রবাসী চর কমলাপুরের সুজন নামে একজন বলেন, আমি গত দু-সপ্তাহ যাবত এসেছি। আমি নিজ থেকে সিভিল সার্জন অফিসের সাথে যোগাযোগ রেখে চলছি। আমার কোন সমস্যা নেই বলে তিনিও দাবি করেন। তবে তিনি সরাসরি কথা বলতে রাজি হননি।

এদিকে বিদেশ ফেরত বেশির ভাগ মানুষ ক্যামেরা ও সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে রাজি হচ্ছেন না।

এ ব্যাপারে ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার বলেন, আমরা করোনা প্রাদুর্ভাব মোকাবেলায়  স্থানীয় জন প্রতিনিধি, ইউপি চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী, থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, ওয়ার্ড মেম্বার, স্বাস্থ্য বিভাগ সহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ নিয়ে এই কার্যক্রমে শামিল রয়েছে। সকলকে সাথে নিয়ে কাজ করে চলছি। এখনও ফরিদপুরে সার্বিক পরিস্থিতি আমাদের নিয়ন্ত্রনে রয়েছে বলে তিনি জানান। তিনি আরো বলেন সকলকে তাঁর নিজ নিজ অবস্থানে থেকে আরো বেশি বেশি সর্তক হতে হবে। এদিকে জেলা প্রশাসন জেলা জুরে মাইকিং এবং লিফলেট বিতরণ করছে জনগনের মাঝে সচেতনতা বিষয়ে।


No comments:

Post a Comment