মায়ের খোঁজে কান্না থামছিল না মেয়ের, নুনুর মুখে মিলল হত্যার বীভৎস বর্ণনা - SHOMOYSANGBAD.COM

শিরোনাম

Wednesday, July 28, 2021

মায়ের খোঁজে কান্না থামছিল না মেয়ের, নুনুর মুখে মিলল হত্যার বীভৎস বর্ণনা


 ​

সময় সংবাদ ডেস্কঃ



মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে সুচিত্রা শব্দকরকে হত্যার বীভৎস বর্ণনা দিয়েছেন স্বামী সুবাস বাউরী ওরফে নুনু। মেয়ের জেরার মুখে তিনি জানান, বাগ্‌বিতণ্ডার এক পর্যায়ে স্ত্রীকে কুড়ালের হাতল দিয়ে মাথায় আঘাত করেন। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন সুচিত্রা। পরে লাশ বাড়ির উঠানে পুঁতে রাখেন।

বুধবার দুপুরে ওই উপজেলার পাত্রখোলা চা বাগানের পশ্চিম লাইন এলাকায় নিজ বাড়ি থেকে সুচিত্রা শব্দকরের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই সময় স্থানীয়দের সহযোগিতায় ঘাতক সুবাস বাউরী ওরফে নুনুকে আটক করা হয়।


খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, স্বামী পরিত্যক্তা সুচিত্রা শব্দকর পাত্রখোলা চা বাগানের বাজারে পরিচ্ছন্নতাকর্মীর কাজ করতেন। সেই সুবাদে চা বাগানের পশ্চিম লাইন এলাকার নিতাই বাউরীর ছেলে সুবাস বাউরী ওরফে নুনুর সঙ্গে পরিচয় হয়। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে সখ্যতা গড়ে উঠলে ১৩ বছর আগে দুই পরিবারের সম্মতিতে নুনুর সঙ্গে বিয়ে হয় সুচিত্রার। তাদের এক ছেলে ও এক মেয়ে আছে। প্রথমদিকে সুখে সংসারে করলেও কয়েক বছর পর স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কলহ শুরু হয়। নেশাগ্রস্ত অবস্থায় নুনু প্রতিদিনই তার স্ত্রীকে মারধর করত।


আরো জানা গেছে, গত ২২ জুন কলহের এক পর্যায়ে কুড়ালের হাতল দিয়ে সুচিত্রা শব্দকরের মাথায় আঘাত করে সুবাস বাউরী ওরফে নুনু। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন সুচিত্রা। পরে ভয় পেয়ে স্ত্রীর লাশ বাড়ির উঠানে মাটি খুঁড়ে পুঁতে রাখে সে। সেই থেকে ছেলে-মেয়ের কাছে মায়ের কথা গোপন রাখে নুনু।


সুচিত্রা শব্দকরের আগের স্বামীর মেয়ে সীমা শব্দকর বলেন, আমি মায়ের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে আমার সৎ বাবা বিভিন্নভাবে এড়িয়ে যেতেন। মায়ের খবর জানতে মোবাইলে কল করলে রহস্যজনক কথাবার্তা বলতেন। সন্দেহ হওয়ায় মঙ্গলবার আমার স্বামীর বাড়ি থেকে মায়ের বাড়িতে আসি।


তিনি আরো বলেন, রাত থেকে বারবার মায়ের কথা জিজ্ঞেস করলেও আমার সৎ বাবা এড়িয়ে যান। আজ সকালে আমার জেরার মুখে এক পর্যায়ে তিনি হত্যার কথা স্বীকার করেন। মায়ের হত্যার কথা শুনে আমি কাঁদতে কাঁদতে চলে যাচ্ছিলাম। ওই সময় প্রতিবেশীরা এসে পুরো ঘটনা জানতে পারে। পরে তারা সুবাস বাউরী ওরফে নুনুকে আটক করে গাছের সঙ্গে বেঁধে পুলিশকে খবর দেয়।


খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন মৌলভীবাজারের সিনিয়র এএসপি (শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ সার্কেল) শহীদুল হক মুন্সি, কমলগঞ্জ থানার ওসি ইয়ারদৌস হাসান, ওসি (তদন্ত) সোহেল রানা প্রমুখ। তারা সুবাস বাউরী ওরফে নুনুর দেওয়া তথ্যে বাড়ির উঠান থেকে সুচিত্রা শব্দকরের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায়।


কমলগঞ্জ থানার ওসি ইয়ারদৌস হাসান বলেন, নিহত সুচিত্রা শব্দকরের মেয়ে সীমা শব্দকরে হত্যা মামলা করেছেন। নিহতের স্বামী সুবাস বাউরী ওরফে নুনুকে আটক করা হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে।

No comments:

Post a Comment